বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩০ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
বেগম রোকেয়া দিবস আজ কৃষক দলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদ পাওয়ায় ভোলায় আবদুর রহমান সেন্টু কে সংবর্ধনা ভোলার ধনিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন ফেরদৌস বাহাদুর ভোলায় কাফনের কাপর প‌রে প্রতীক হাতে নিলেন বিদ্রোহী প্রার্থী ভোলার দক্ষিণের বঙ্গোপসাগরে জাহা‌জের ধাক্কায় ফি‌শিং‌বোর্ড ডু‌বি, নি‌খোঁজ ১৩ জে‌লে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে ভোলার উপকূল জুড়ে বৃষ্টি অব্যাহত ॥ সামাল দিতে সর্বাত্মক প্রস্তুতি ফাইনালে লড়বে ভোলা প্রেসক্লাব বনাম তজুমদ্দিন প্রেসক্লাব ভোলায় যুবলীগ নেতা হত্যার পরিকল্পনায় পরাজিত প্রার্থী: পুলিশ ভোলায় র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযু‌দ্ধে দুই জলদস‌্যু নিহত লালমোহনে বঙ্গবন্ধু মিডিয়া কাপ আন্ত:উপজেলা প্রেসক্লাব ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন
যখন বয়স আমার ১১

যখন বয়স আমার ১১

সময় ডিসেম্বর, ১৯৯০ বয়স আমার ১১,বাবা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। এরশাদের বুলডগগুলো বাবাকে পেলে শেষ করে দেবে। খুলনা বিভাগের আন্দোলন বাবা তার নিজের ব্যবসার টাকায় চালান। কয়েকদিন আগেই দেশনেত্রী বেগম খালেদাজিয়া আমাদের বাসায় টানা তিনদিন থেকে আমাদের ছোট্ট মেঘদূত লঞ্চে চড়ে ভোলা সহ আসেপাশের অঞ্চলগুলো আন্দোলনের জন্য সংঘবদ্ধ করেন।

যাই হোক, আমার মেঝোবোন তখন বুয়েটে চান্স পেয়ে ঢাকায় চাচার বাসায় থেকে ক্লাস করে। দেশের অস্থির সময় বুয়েট সাময়িক বন্ধের কারনে সে চলেআসে বরিশালের বাসায়। বাবা তখন পলাতক। মেঝবোন ঢাকা থেকে চলে এসেছে খবর পেয়ে বাবা দুপুরবেলা বাসায় চলে আসে। দশ থেকে পনেরো মিনিট বাসায় থেকেই বেড়িয়ে যায় বাবা। শুধু বলে যায়, টেনশন কোরোনা তোমরা। খুব বেশি দরকারে তোমাদের দুলাল কাকার বাসায় ফোন দিও। আমি রাতে হয়ত ওখানেই থাকবো।

বাবা পালিয়ে বেড়ালেও কিছু কিছু মানুষ বাবার পিছু ছাড়তোনা। এদের মধ্যে দোলন কাকা (বরিশালের), নোমান কাকা (নোমান চেয়ারম্যান, উত্তর দিঘলদী), ফারুক কাকা (বর্তমানে স্বনামধন্য একজন ইঞ্জিনিয়ার), রিহিন কাকা (ইলিশা) এবং আরো দুচার জন।

বাবা তার সঙ্গীদের ফেরত পাঠিয়ে রাত জাপনে বরিশালের দুলাল কাকার বাসায় অবস্থান নেন। বাসায় ফোন করে জানিয়ে দেন, কেউ তাকে খুঁজতে আসলে আমরা যেন তার অবস্থান না বলি।

রাত ৯ টার দিকে বাসায় একটা ফোনকল। ঢাকা থেকে আসা মেঝবোন ওটা রিসিভ করেছিল। ফোনের ওপাশ থেকে জিজ্ঞাসা করলো, এটাকি শাজাহান সাহেবের বাসা?

মেঝবোন বল্লেন, জ্বী।

ফোনের ওপাশ থেকে, মা তুমি কে? তুমিকি শাজাহান ভাইয়ের মেয়ে?

আমার মেঝবোন বল্লেন, জ্বী চাচা।

ফোনের ওপাশ থেকে, মামনি আমি তোমার একটা চাচা। তোমার বাবাকে খুব প্রয়োজন। তাকে কই পেতেপারি? তিনি কি বাসায় আছেন?

বোন বল্লেন, জ্বী না চাচা।

ফোনের ওপাশ থেকে, কই আছে প্লিজ বলবে মা? আমার অল্প একটু আলাপ আছে মাত্র। তাকে না পেলে, তারই বড় একটা ক্ষতি হয়ে যাবে মা।

মেঝবোন বল্লেন, চাচা আমি বাবার একটা ফোন নাম্বার দিচ্ছি। আপনি ফোনে কথা বলুন।

ফোনের ওপাশ থেকে, দাও।

নাম্বারটা নিয়েই লাইন কেটে দিল সেই লোকটা।

আমার মা টেলিফোনের কথোপকথন শুনেই দূর থেকে ছুটে এসে বল্লেন, কাকে ফোন নাম্বার দিয়েছ?

মেঝবোন বল্লেন, বাবার একটা বন্ধুকে। বাবাকে না পেলে নাকি অনেক ক্ষতি হয়ে যাবে।

এরমধ্যেই যা ক্ষতি হবার হয়েগিয়েছিল। ফোনটা এসেছিল তৎকালীন বরিশালের এরশাদের বিশেষ চাটুকার, এম পি বারেকের কাছ থেকে। বাবার জুনিয়র বন্ধু দুলাল কাকার বাসায় প্রথমেই এম পি বারেক ফোন করলো বাবাকে। অকথ্য ভাষায় গালাগালি, হুমকী আর ব্যক্তিগত রোষানলের স্বীকার হলেন বাবা। দুলাল কাকার বাড়িটা কয়েক প্লাটুন পুলিশ আধাঘণ্টার মধ্যেই রেইড করে ফেল্ল। তবে ততক্ষনে বাবা ঐ বাড়ী থেকে বের হয়ে যেতে পেরেছিলেন। ঐ রাত থেকে পরেরদিন রাত পর্যন্ত বাবার খবর আমরা কেউ পাইনি।

পরেরদিন রাতে বাবা মিছিল নিয়ে আমাদের বরিশালের বাসায় ফিরলেন। এরশাদ সরকার আন্দোলনের মুখে দশ মিনিট আগে পদত্যাগ করেছে।

বরিশালের বাড়িতে তখন উল্লাসের ছড়াছড়ি। ভোলা আর বরিশালের নেতারা তখন আনন্দ, আবেগে বাবাকে কাঁধে চড়িয়ে মিছিলে মত্ত। বাবা বাসায় ঢুকেই মা’কে বল্লেন, চল বের হতে হবে এখনি।

মা বল্লেন, কই যাবে এত রাতে?

বাবা বল্লেন, জরুরী , চল।

বাবা আর মা সেদিন রাতে গিয়েছিল এম পি বারেকের বাসায়। বাবা নাকি তার বাড়িতে গিয়েই জিজ্ঞাস করেছিল, বারেক একটু চা খাওয়াতে পারবে?

এম পি বারেকের বাড়ীর নিচে তখন শতশত বি এন পি কর্মী প্রতিশোধ নেয়ার জন্য ভীর জমিয়েছে। বাবার সঙ্গীরা (বর্তমান নোমান চেয়ারম্যান, বাদশাহ মেম্বার, বরিশালের শাহীন কাকা, জাফর কাকা) উত্তেজিত অবস্থায় বাবার কাছে গিয়ে বল্লেন, “নেতা এই বাসাটারে জালায়া দেই?”

বাবা বল্লেন, তোরা দেখসনা? আমি আর তোদের ভাবী এইখানে বইসা চা খাইতেসি? যা ভাগ। খবরদার কোনো অসভ্যতামী করবিনা। যা হবার হইসে। এখন দেশ গুছানোর সময়।

Facebook Comments


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2020 ভোলা প্রতিদিন
Design & Developed BY ThemesBazar.Com